১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রচ্ছদ ধর্ম ও ইসলাম ময়মনসিংহের আঞ্জুমান ইদগাহ মাঠে ৩ দিনব্যাপী আঞ্চলিক ইজতেমা শুরু।।
৮, নভেম্বর, ২০১৯, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ণ -

ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহ মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য তাবলীগ জামাতের মুলধারা দিল্লীর নিজাম উদ্দীনপন্থীদের উদ্যোগে ময়মনসিংহে চলছে তাবলিগ জামাতের তিন দিনব্যাপী আঞ্চলিক ইজতেমা।

বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে নগরীর আঞ্জুমান কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে শুরু হওয়া এ ধর্মীয় অনুষ্ঠান চলবে আগামী শনিবার (৯ নভেম্বর) পর্যন্ত।

ইতোমধ্যেই ময়মনসিংহ ও এর আশপাশের জেলা-উপজেলা থেকে হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসল্লি এসে যোগ দিয়েছেন এ ইজতেমায়।

এই ইজতেমা এর আগে শেরপুর, জামালপুর, নেত্রকোনা জেলায় সম্পন্ন হলেও ময়মনসিংহে এটাই প্রথম ইজতেমা বলে জানান-তাবলীগ জামাতের জিম্মাদার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড.মোঃ মোজাফফর হোসেন।

তিনি বলেন, তাবলীগের চেইন অব কমান্ড নিয়ে আলেমদের মাঝে মতবিরোধ থাকলেও যেহেতু এটা দ্বীনের কাজ, আল্লাহর কাজ তাই এখানে কোন প্রকার অপৃতিকর ঘটনা ঘটার আশঙ্কাও নেই।

তিনি আরোও বলেন, আঞ্জুমান ইদগাহ মাঠের ইজতেমা ময়দানের বিশাল মাঠে জমির উপর নির্মিত সুবিশাল প্যান্ডেলের খুঁটিতে নম্বরপ্লেট, খিত্তা নম্বর, জুড়নেওয়ালি জামাতের কামরা, তাশকিল কামরা, হালকা নম্বর বসানো হয়েছে। সুস্পষ্টভাবে বয়ান শোনার জন্য পুরো মাঠে শব্দ প্রতিধ্বনিরোধক প্রায় শতাদিক বিশেষ মাইক বসানো হয়েছে। কোনো রকম বৈষয়িক লাভের আশা না করে, কেবল আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য দ্বীনের মেহনত করে এরই মধ্যে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ইজতেমা ময়দানে এসেছেন। প্রতিদিন ফজর, জোহর, আছর, মাগরিব বাদ এই ইজতেমায় তাবলীগের বয়ান হবে।

মুসল্লিদের থাকা খাওয়ার জন্য প্যান্ডেল ও রান্নার জায়গা ঠিক করে দিয়েছে আয়োজক কর্তৃপক্ষ। স্বেচ্ছাসেবীর মাধ্যমে ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের সেবা দেয়ার পাশাপাশি বিশুদ্ধ পানি পান, অজুখানা ও টয়লেট স্থাপন, পর্যাপ্ত লাইট ও মাইকের ব্যবস্থাসহ জরুরি মেডিকেল ক্যাম্পও স্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়াও ইজতেমাকে ঘিরে নেয়া হয়েছে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পুরো এলাকা ও এর আশপাশ এলাকাজুড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও স্বেচ্ছাসেবীরা নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলেছেন। র‌্যাব, পুলিশ, আনসার, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যসহ পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে রয়েছে।

আগামী শনিবার (৯ নভেম্বর) দুপুরে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে এই ইজতেমা শেষ হবে।