১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রচ্ছদ নারী ও শিশু, ময়মনসিংহ ধোবাউড়া জৈনপট্টি কান্দাপড়ায় শিশুকন্যাকে ধর্ষণের চেষ্টা।
১১, নভেম্বর, ২০১৯, ১১:৩৩ অপরাহ্ণ -

বার্নার্ড সরকার(ধোবাউড়া প্রতিনিধি) ঃময়মমনসিংহ জেলার ধোবাউড়া উপজেলায় ৩১/১০/২০১৯-ইংরেজি তারিখ রোজ বৃহস্পতিবার বিকাল অনুমান ০৪;০০ ঘটিকার সময় শিশুকন্যা সমাপ্তি রেমা (০৪) বাড়ীর উত্তর আঙ্গিঁনায় খেলিতে থাকাবস্থায় ১-রজব আলী (৬০) তাহার অসৎ উদ্দেশ্যে চরিতার্থ করার হীন উদ্দেশ্যে শিশুকন্যাকে লজেন্স ও খাবার দিবে ইত্যাদি নানা লোভলালসা দেখাইয়া বাড়ীর উত্তর পাশে জঙ্গঁলে নিয়া সমাপ্তি রেমার (০৪)কন্যার পড়নের হাফপ্যান্ট খুলিয়া শিশুকন্যাকে ধর্ষণের চেষ্টায় কন্যার সহিত ধস্তাধস্তি করিতে থাকে। কন্যার কান্নাকাটি করিয়া ডাক চিৎকার করিতে থাকিলে ১-স্বাক্ষী টুম্পা রেমা স্বামী সোহেল ডিব্রা ২। মিতালী রেমা স্বামী সমুয়েল ম্রং ৩। সুভ্রা রেমা স্বামী বাবলু রাংসা ৪। মুক্তি রেমা স্বামী আমোশ বিশ্বাস সর্বসাং জৈনপট্টি (কান্দাপাড়া) থানা ধোবাউড়া জেলা ময়মনসিংহ।

আরো লোকজন ঘটনাস্থলে যাইতে থাকাবস্তায় ১-রজব আলী কন্যাকে ছাড়িয়া দৌড়াইয়া চলিয়া যায়। ১-রজব আলী দৌড়াইয়া যাইতে দেখিয়া ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর কন্যার উপস্থিত সকলকে ঘটনা জানায়। পরে স্থানীয় গণ্যমান্যদেরকে ঘটনা জানাইয়া বিচার দিয়া গ্রাম্য শালিসীর আশ্বাসে ব্যর্থ হইয়া বাড়ীতে যাওয়ার পর ২-মজিবর রহমান (৫০) পিতা মৃত সাজন আলী ৩। মর্জিনা খাতুন (৪৫) স্বামী রজব আলী ৪। সোহাগ মিয়া (২২) পিতা রজব আলী সর্বসাং জৈনপট্টি (কান্দাপাড়া) থানা ধোবাউড়া জেলা ময়মনসিংহ লাঠিসোটা হাতে নিয়ে ১,জরিনা রেমার (৫০) বাড়ীতে গিয়ে গালিগালাজ করিয়া হুমকি ধমকি প্রদর্শন করে যে,সৃষ্ট ঘটনার বিষয়ে বিচার দিলে বা আইনের আশ্রয়ে গেলে অন্যদিন ১,জরিনা রেমা (৫০) স্বামী রঞ্জন স্কু সাং-জৈনপট্টি (কান্দাপাড়া) মানিত স্বাক্ষীগণকে খুন করিয়া লাশ গুম করিবে এবং বাড়ীঘর পোড়াইয়া দিবে বলিয়া নানা ভয়ভীতি দেখাইয়া বিবাদী ১-রজব আলীর অপরাধ সংঘটনে সহায়তা করিয়া চলিয়া যায়। পরে ১-জরিনা রেমা (৫০) মানিত স্বাক্ষীগণসহ স্থানীয় গণ্যমান্যদেরকে ঘটনা জানায়। বর্তমানে ১-রজব আলীর জনগণে নানা ভয়ভীতি দেখাইয়া আসিতেছে। ঘটনা তদন্তে সত্যতা প্রমান হইবে। স্থানীয়ভাবে দেন দরবারের আশ্বাসে ব্যর্থ হইয়া ১-জরিনা রেমা (৫০) আমার কন্যার মুখ থেকে ঘটনা জানিয়া ও শুনিয়া আমার স্বামীর অনুমতি নিয়া আমার কথামতো অভিযোগ টাইপ করাইয়া শুদ্ধস্বীকারে স্বাক্ষর করিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করিতে বিলন্ব হইল। সেমতে প্রার্থনা এই যে,উপরোক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণে মর্জি হয়।(জরিনা রেমা স্বাক্ষরিত)