২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রচ্ছদ বিনোদন আহমেদ ফাহমির অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল হয়। হইচই পড়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়।
১৮, নভেম্বর, ২০১৯, ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ -

বিনোদন তথ্যপ্রতিদিন

আহমেদ ফাহমির অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল হয়। হইচই পড়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সে আলোচনায় এসে পড়ে তাহসান-মিথিলা রসায়নও।
এবার এসব বিষয়ে অনেকটা ইঙ্গিত দিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করে তাহসান জানালেন, তিনি গানের পাখি, অথচ তার গানবিষয়ক কোনো আলোচনা-সমালোচনা যতটা হয়, তার চেয়ে ঢের বেশি অন্যসব প্রসঙ্গ নিয়ে হয়।
শুক্রবার এক অনুষ্ঠানে তাহসান সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘অত্যন্ত কষ্টের সঙ্গে একটি কথা বলতে চাই, তা হলো- গত এক বছরে আমাকে নিয়ে অন্য যত নিউজ করেছেন, তার খুব কমই হয়েছে আমার গান নিয়ে। এটি আমার জন্য এবং পুরো ইন্ডাস্ট্রির জন্য কষ্টের। আমি আগের মতো গান নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ আশা করছি আপনাদের কাছে।’
অবশ্য এ বিষয়ে সাংবাদিকদের পাশাপাশি নিজেকে দোষারোপ করতে ভোলেননি তাহসান।
তিনি বলেন, ‘গানকে আমরা এখন বেশি করে উপভোগ করি না। গান নিয়ে উৎসব অনুষ্ঠানও তেমন আর হয় না। আমরা গানের প্রচারও ঠিকমতো করি না। আমাদের ফোকাস এখন গানের দিকে নয়; ভিডিওর দিকেই বেশি মনযোগী।’
শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় তাহসান-মালার গানচিত্র ‘আনমনে’ অবমুক্ত হয়। আর সেই গানচিত্রের প্রকাশনা উৎসবে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন সংগীতশিল্পী তাহসান।
অনুষ্ঠানে তাহসান বাংলাদেশের সংগীতজগতের বর্তমান ও অতীত পরিস্থিতির তুলনা করে নিজেকে সৌভাগ্যবানদের একজন বলে উল্লেখ করেন।
কিছুটা আক্ষেপের সুরে তাহসান বলেন, ‘আমি খুব সৌভাগ্যবান। কারণ আমরা যে সময়ে গান শুরু করি, তখন পত্রিকার পাতায় নিয়মিত গানের বিশ্লেষণ হতো। কিন্তু এখন আর সেগুলো চোখে পড়ে না। এখন পত্রিকার খবরগুলো হয় মিউজিক ভিডিও কেন্দ্র করে।’
বিস্তারিতভাবে তিনি বলেন, ‘একটা সময় ছিল যখন কোনো অ্যালবাম বের হলে পত্রিকায় তা নিয়ে সমালোচনা ও চুলচেরা বিশ্লেষণ হতো, যা এখন আর হয় না। সেই সময় পত্রিকায় সাংবাদিকরা লিখতেন- এই অ্যালবামটির অমুক চারটি গানের কথায় গভীরতা আছে। এই তিনটি গানের কথা শক্ত না হলেও সুর হৃদয় ছুঁয়ে যায়। এই গানটির শেষে শিল্পী যে টান দিয়েছে, সেটি কী দারুণ! এভাবে প্রায় প্রতিটি গান ধরে ধরে পত্রিকায় রিভিউ হতো। এ রকম লেখা আমরা প্রতিনিয়তই পড়তাম। যেটি পড়ে আমরা উৎসাহ পেতাম, শিখতাম। এমনকি ভালো-মন্দ প্রতিক্রিয়াও জানাতাম। কিন্তু এখন আর এ রকম লেখা আমরা পাই না।’
এদিকে এদিন প্রকাশিত ‘আনমনে’ গানটি প্রসঙ্গে নিজের বিশ্লেষণ করতে গিয়ে তাহসান বলেন, ‘আপনারা যদি একটু পাশ্চাত্যের মিউজিক ভিডিও দেখেন, দেখতে পাবেন কোনো স্টোরি থাকে না। শুধু ফিল থাকে, কালারস থাকে, ইমোশন থাকে। আমার মনে হয় আমাদের এই গানটি ঠিক সে রকম কিছুই হয়েছে। তার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে- আমরা যারা ইন্ডাস্ট্রিতে আছি, তারা সবাই নিজেদের স্থান থেকে নিজেদের সর্বোচ্চ দেয়ার চেষ্টা করছি। আমার কাজ গান করা। আমি সেটির সর্বোচ্চটা দেয়ার চেষ্টা করব। আর সাংবাদিক ভাইদের কাজ সেই গান নিয়ে লেখা। আমি আশা করব আপনারা আপনাদের সেরাটা দিয়েই সেই দায়িত্বটা পালন করবেন। তা হলেই ইন্ডাস্ট্রি এগিয়ে যাবে। আমাদের এই গানটি কেমন লাগল সেটি সত্যি করে পত্রিকার পাতায় বলবেন। যদি খারাপ হয় তা হলে অবশ্যই লিখবেন- খারাপ হয়েছে। এই ডিসকাশনটা নিয়মিত চাই।’
সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া ভাইরাল হয়, তাহসানের কণ্ঠে গাওয়া জনপ্রিয় গান ‘ইর্ষা’-এর দু-একটি লাইন। গানের মাঝে তিনি স্মৃতি রোমন্থন করেন, একসময় ঢাকার বেইলি রোডে কত রিকশায় দুজনে কত ভিজেছেন, আজ সেই সঙ্গী নেই। তবে এতে কোনো দুঃখ নেই তার।
এমন মন্তব্যের পর ফেসবুকে সেই ভিডিও হু হু করে ছড়িয়ে পড়ে।
প্রসঙ্গত শুক্রবার অবমুক্ত হওয়া তাহসান-মালার গানচিত্র ‘আনমনে’ গানটি গাওয়ার পাশাপাশি কথা ও সুর করেছেন মালা নিজেই। এর সংগীত পরিচালনা করেছেন সাকের রেজা। তানিম রহমান অংশুর পরিচালনায় তৈরি হয়েছে একটি ভিডিও। যাতে মডেল হিসেবে আছেন সাইফ সাইফুল ও রাজকুমারী রিয়া।
সাংবাদিকদের কাছে এই গানটি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা প্রত্যাশা করেন তাহসান খান।